Sunday, November 23, 2014

তিন মেয়েসহ মাকে পুড়িয়ে হত্যার মূল আসামি গ্রেপ্তার

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে তিন মেয়েসহ মাকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনার প্রধান আসামি জাহাঙ্গীর আলমকে পুলিশ গ্রেপ্তার করছে। আজ শনিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে পুলিশ নিজ বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে। এ নিয়ে মামলার এজাহারভুক্ত পাঁচ আসামিসহ ১৮ জন গ্রেপ্তার হলো। মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজি না হওয়ায় মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের সোহাগপাড়া গ্রামের মজিবর রহমানের স্ত্রী হাসনা বেগম (৩৫), তার তিন মেয়ে গোড়াই উচ্চবিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী মনিরা আক্তার (১৪), বাক প্রতিবন্ধী মীম আক্তার (১০) ও ব্র্যাক স্কুলের নার্সারীর শিক্ষার্থী মলি আক্তারকে (৭) ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। গত ৬ অক্টোবর, কোরবানীর ঈদের দিন রাতে এ ঘটনা ঘটে। মজিবর রহমান মালেয়শিয়া প্রবাসি। পরদিন ৭ অক্টোবর মজিবর রহমানের শ্যালক মোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে মির্জাপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় ওই গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমকে প্রধান করে ১০ জনকে আসামি করা হয়। ঘটনার পর থেকেই জাহাঙ্গীর পলাতক ছিলেন। জাহাঙ্গীর আলমকে ধরিয়ে দিতে পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এসএম মাহফুজুল হক নুরুজ্জামান এক লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেন। রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত জাহাঙ্গীরকে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

নির্বাচনী গণতন্ত্র থেকে সরে এসেছে বাংলাদেশ by মুবাশার হাসান

বাংলাদেশ সম্প্রতি নির্বাচনী গণতন্ত্র থেকে সরে এসেছে। বছরের শুরুতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একতরফা নির্বাচনের পর সরকার গঠন করে। বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দলীয় দল, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) ওই নির্বাচন বর্জন করে। তাদের সিদ্ধান্তের ভিত্তি ছিল নির্বাচনটি নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হচ্ছে না আর পক্ষপাতমূলক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। ৯০-এর দশকের শুরুতে এরশাদ শাসনের অবসান হওয়ার পর থেকে বাংলাদেশী রাজনৈতিক দলগুলো নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানে সম্মত হয়। সূত্রপাত হয় বহুদলীয় গণতন্ত্রের। ২০১৪ সালের নির্বাচন এ সংস্কৃতির স্পষ্ট ব্যত্যয় নির্দেশ করে। বিদেশী সহায়তা, পশ্চিমা এনজিও, বিশ্বব্যাংক আর আইএমএফ স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও অন্যান্য খাতে উল্লেখযোগ্য প্রগতি অর্জনে বাংলাদেশকে সহায়তা করেছে। অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার বিজয়ী অমর্ত্য সেন যেমনটা বলেছেন, বাংলাদেশ যে মাত্রায় সামাজিক প্রগতি অর্জন করেছে তাতে দেশটি পার্শ্ববর্তী অধিকতর বড় গণতন্ত্রের দেশ ভারতের চেয়ে এগিয়ে আছে। বাংলাদেশের সমস্যা তাদের রাজনীতি যা সহিংসতা, দুর্নীতি আর তোষামোদিতে জর্জরিত। এ রাজনীতি দেশটির সামাজিক প্রগতির অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সবচেয়ে খারাপ বিষয়টি হলো উগ্র ইসলামিজমও দেশটিতে শক্ত ঘাঁটি বানিয়ে ফেলেছে। দেশব্যাপী দরিদ্র আর ধনীদের মধ্যে পার্থক্য যেখানে বেড়েছে, রাজনীতির অবিচ্ছেদ্য অংশ ইসলামÑ এ ধারণা তত জনপ্রিয় হয়েছে। ২০১৩ সালের একটি পিউ গবেষণা জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৮৭ শতাংশ বলেছেন, এটা খারাপ যে বাংলাদেশ পুরোপুরি শরিয়াহ আইন প্রয়োগ করে না। ইউরোপ আর আমেরিকার ইতিহাস থেকে দেখা গেছে, ধর্মীয় একটি সমাজের মধ্যেও উদারমনা গণতন্ত্র সমৃদ্ধি লাভ করতে পারে। বাংলাদেশের সুনির্দিষ্ট সমস্যা উভয় প্রধান রাজনৈতিক দল গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় নীতিমালা হিসেবে ধর্মকে অন্তর্ভুক্ত করেছে। যেমন পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা আর রাষ্ট্র পরিচালিত ইসলামিক ফাউন্ডেশন। এছাড়াও রয়েছে নানা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, যেমন স্কুল, কলেজ আর বিশ্ববিদ্যালয়। আশির দশকে মধ্যপ্রাচ্যের ধনী মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর সক্রিয় আর্থিক সহায়তার সঙ্গে শুরু হয় রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ইসলামিকরণ প্রক্রিয়া। একপর্যায়ে বিএনপি, আওয়ামী লীগ উভয়ই তা সমর্থন করে। ৭০-এর দশকে আরব-ইসরাইল যুদ্ধে ওই মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর পরাজয় এবং ইসরাইলের প্রতি পশ্চিমা সমর্থনে তাদের বিদ্বেষের কারণে তারা বিশ্বব্যাপী ইসলামিকরণ প্রক্রিয়া শুরু করে। এ প্রক্রিয়ার লক্ষ্য ছিল, তাদের দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী দরিদ্র মুসলিম রাষ্ট্রগুলোকে পশ্চিমাকরণ থেকে প্রতিহত করা। বাংলাদেশীদের বড় একটি সংখ্যা অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকগুলোর সঙ্গে গণতন্ত্রকে এক করে দেখেন। একদিকে এতে প্রতীয়মান হয়, যারা গণতন্ত্রের পক্ষে কথা বলে থাকেন তারা এ বিষয়টা কি এবং কিভাবে তা বাংলাদেশীদের উপকারে আসছে সে ব্যাখ্যা দিতে ব্যর্থ। একই সঙ্গে সহজেই বোধগম্য হয় কেন অনেকে রাজনীতির তুলনায় বাস্তবতায় বেশি মনোযোগী। নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার সহ গণতন্ত্রের উপকারগুলো নিয়ে সাধারণ জনগণকে সচেতন করতে বাংলাদেশ সরকার ও দেশের এনজিওগুলোকে আরও কঠোর পরিশ্রম করা প্রয়োজন। উভয় জাতীয় রাজনৈতিক দলের রাজতন্ত্রের ধরন আর দুর্নীতির মধ্য দিয়ে নিজে সমৃদ্ধ হওয়ার যে দীর্ঘদিনের প্রবণতা দলের নেতৃবৃন্দের রয়েছে তা আংশিক ব্যাখ্যা দেয় কেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি উভয়ই একটি ধর্মীয় পরিচয় প্রচার করে নাগরিকদের মনোযোগ ভিন্নমুখী করতে চায়। মিশরের মুসলিম ব্রাদারহুডের আদলে সংগঠিত ডানপন্থি জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে বিএনপির জোট রাজনৈতিক পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলেছে। ভারত সরকার অভিযোগ তুলেছিল, ২০০১-০৬ সালে বিএনপি-জামায়াত সরকারের সময় পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তায় ভারতে সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে দেয়ার পেছনে দায়ী ছিল জামায়াত। এ কারণে ২০১৪ সালের একতরফা নির্বাচনে আওয়ামী লীগে ছিল ভারতের সমর্থন। ভারত ছাড়া সব পশ্চিমা রাষ্ট্র নতুন নির্বাচনের আহ্বান জানিয়েছে। পক্ষপাতমূলক সরকারের অধীনে নির্বাচন না করতে আওয়ামী লীগকে বোঝানোর প্রচেষ্টায় জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন তার বিশেষ প্রতিনিধি অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোকে বাংলাদেশে পাঠান। ২০১৩ সালে রাজনীতি বিষয়ক সহকারী মহাসচিব তারানকো আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে মধ্যস্থতা করানোর চেষ্টা করেন। এতে ব্যর্থ হয়ে তিনি বাংলাদেশ ত্যাগ করেন। রাজনীতিতে ইসলামের সমন্বয় সাধনের দিক দিয়ে বাংলাদেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলো আর প্রথাগত ইসলামী দলগুলোর পার্থক্য খুবই সামান্য। প্রধান দলগুলো উভয়ই এমন একটি পরিবেশ সৃষ্টি করেছে যেখানে বাংলাদেশী সমাজে ধর্মের ক্রমবর্ধমান শক্ত প্রভাব রয়েছে। রাজনৈতিক ইসলাম দিয়েই বাংলাদেশের রাজনীতির অবকাঠামো। আর অদূর ভবিষ্যতেও তেমনটাই থাকার সম্ভাবনা।
মুবাশার হাসান- গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটি’র স্কুল অব গভর্নমেন্ট অ্যান্ড আইআর-এ একজন পিএইচডি প্রার্থী। এছাড়াও তিনি ‘আলোচনা’ নামক ধর্মনিরপেক্ষ এবং পক্ষপাতমুক্ত প্লাটফরমের সহ-প্রতিষ্ঠাতা।
ইস্ট এশিয়া ফোরামে প্রকাশিত লেখার অনুবাদ

Saturday, November 22, 2014

আমাদের আঘাত করলে প্রত্যাঘাতের জন্য তৈরি থাকুন -মোদিকে মমতা

সারদা চিট ফান্ড সংস্থার আমানত কেলেঙ্কারিতে তৃণমূল কংগ্রেস এমপি এবং কলকাতার একটি দৈনিক সংবাদপত্র ও তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপত্র জাগো বাংলার সম্পাদক সৃঞ্জয় বসুকে গ্রেপ্তারের চব্বিশ ঘন্টার মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি প্রবল ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। বলেছেন, আমাদের আঘাত করলে প্রত্যাঘাতের জন্য মোদী সরকার তৈরি থাকুক। রীতিমত চ্যলেঞ্জের সুরে মমতা বলেছেন, আামাদের চোখ রাঙিয়ে কোনও লাভ হবে না। আমরা কারও উপর নির্ভরশীল নই। শনিবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের কর্মিসভায় একযোগে বিজেপি, কংগ্রেস এবং সিবিআই-কে আক্রমণ করেন মমতা। বিজেপিকে ‘দাঙ্গাবাজের দল’ বলে কটাক্ষ করে তিনি দাবি করেন, রাজ্যসভায় বিল পাশ করাতে চাইছে বিজেপি। তাই বেছে বেছে তৃণমূলের সাংসদদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। ষড়যন্ত্র করে আঘাত হানছে বিজেপি। মমতা অভিযোগ করেছেন, দিল্লিতে জওহরলাল নেহরুর জন্মদিনের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম বলেই এই গ্রেপ্তারি। এরই পাশাপাশি সংবাদ মাধ্যমের একাংশের বিরুদ্ধেও এ দিন সরব হন মমতা।  সারদা কেলেঙ্কারিতে মমতা ও তার দলের নেতাদের যোগ থাকা নিয়ে বিজেপি যে অভিযোগ তুলেছে তার প্রত্যুত্তরে মমতা বলেছেন, আমার কারও সার্টিফিকেটের প্রযোজন হয় না। আমার যোগ্যতা বাংলার মানুষ জানে। সারদা কান্ডে ইতিমধ্যেই দুই তৃণমূল কংগ্রেস এমপিকে গ্রেপ্তার করেছে সিবিআই। গ্রেপ্তার হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও সাবেক পুলিশ ডিজি । আর জেরার মুখে পড়তে চলেছেন রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী ও মমতা ঘনিষ্ট মদন মিত্র। একের পর এক তৃণমূল কংগ্রেসের সদস্যদের সারদা কান্ডে যোগ থাকার অভিযোগে সিবিআই যেভাবে উঠেপড়ে লেগেছে তাতে শঙ্কিত মমতা  হুঙ্কার দিয়ে বলেছেন, বিজেপি যদি মনে করে পশ্চিমবঙ্গে দাঙ্গা বাধাবে তবে তৃণমূল কংগ্রেস তা কোনওভাবেই হতে দেবে না। মোদীর নাম না করে তিনি অভিযোগ করেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার বিভাজনের নীতি নিয়ে চলেছে। সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাড়ছে। চ্যালেঞ্জ নিতে তৈরি জানিয়ে মমতা বলেছেন, আমরা লড়াই করে যাব। তবে কুনালের পাশে না দাঁড়ালেও  সৃঞ্জয়ের পাশে দাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, সারদা কাদের প্রতারণা করেছে সেই তদন্ত না করে সিবিআই এখন সারদাকে কারা প্রতারণা করেছে সেই তদন্তে ব্যস্ত। এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর এ দিনের প্রতিক্রিয়াকে ‘স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া’ বলে কটাক্ষ করেছেন সিপিএম নেতা মানব মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন, খাঁচায় পোরা হলে সবাই নখ-দাঁত বের করে। বিজেপি দাঙ্গাবাজ দল সেটা এত দিনে জানতে পারলেন মমতা ? কংগ্রেস নেতা আব্দুল মান্নান বলেন, নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করছে সিবিআই। যারা লুট করেছে, স্বাভাবিক ভাবেই তারা ভয় পাচ্ছে।